আর্সেনালের সহজ জয়

 

চলতি মৌসুমে দুর্দান্ত গতিতে এগিয়ে যাচ্ছে আর্সেনাল। প্রিমিয়ার লিগে টানা সপ্তম জয় তুলে নিয়েছে আর্সেনাল। মেসুত ওজিল ও পিয়েরে-এমেরিক অবামেয়াংয়ের নৈপুণ্যে লেস্টার সিটিকে ৩-১ গোলে হারিয়েছে উনাই এমেরির দল।

এবারের লিগে নিজেদের প্রথম দুই ম্যাচেই হেরেছিল আর্সেনাল। জিতল পরের সাত ম্যাচেই। সব প্রতিযোগিতা মিলিয়ে জিতল টানা ১০ ম্যাচ। ২০০৭ সালের পর যা তাদের প্রথম। সেবার জিতেছিল টানা ১২ ম্যাচ।পুরো ম্যাচে মিড ফিল্ড দাপিয়ে বেরিয়েছেন মেসুত ওজিল।

প্রথম গোলটি নিজের হলেও পরের দুই গোলে ছিলো তার ভূমিকা। ম্যাচের শুরুটা মৌসুমের বাকি ম্যাচগুলোর মতোই করেছিলো আর্সেনাল। প্রথমার্ধ খেই হারিয়ে শুরু। পরের অর্ধে দাপট দেখিয়ে প্রতিপক্ষের রক্ষণ দুর্গ গুঁড়িয়ে দেওয়া। এমনটি দেখা গেলো এই ম্যাচেও।

শুরুতে তাদের ধাক্কা খেতে হয় আত্মঘাতী গোলে পিছিয়ে। ৩১ মিনিটে পিছিয়ে যাওয়ার পর তাদের স্বরূপে ফেরান ওজিল। বিরতির কিছু আগে বেলেরিনের সঙ্গে ওয়ান-টুতে দূরের জালে বল জড়ান জার্মান এই মিডফিল্ডার।

বেশ কয়েক ম্যাচ ধরে এমন দশা গানারদের। প্রথমার্ধটা শেষ হচ্ছে নিরসভাবে। এমন নখদন্তহীন পারফরম্যান্সে তুষ্ট ছিলেন না আর্সেনাল কোচ এমেরিও। এই ম্যাচও তার ব্যতিক্রম ছিলো না। দ্বিতীয়ার্ধের পরেই খোলস ছেড়ে বেরিয়ে আসে আর্সেনাল। লিগে এখন পর্যন্ত যাদের ১৯টি গোলের ১৪টিই এসেছে দ্বিতীয়ার্ধে, সেই গানাররা এই অর্ধে আউবামেয়াংয়ের জোড়া গোলে স্কোর লাইন করে ৩-১।

৬৩ আর ৬৬ মিনিটে আসা এই গোল দুটির পর আর ব্যবধানে হেরফের করতে পারেনি লিস্টার।ম্যাচের পারফরম্যান্সের সঙ্গে অধিনায়ক ওজিলের অধিনায়কত্বের প্রশংসা করেন এমেরি। বলেন, ‘হ্যাঁ, এই মুহূর্তে এমন লিডারশীপ দরকার ছিল।

তবে আমাদের বেশ কয়েকজন সামর্থবান খেলোয়াড় আছেন। আমি মনে করি, ওজিলের যে কোয়ালিটি, তাতে তিনি অধিনায়ক থাকুন আর নাই থাকুন প্রতিটি ম্যাচেই এমন খেলা খেলতে পারেন।’

৯ ম্যাচে ২১ পয়েন্ট নিয়ে চতুর্থ স্থানে আর্সেনাল। সমান ম্যাচে ২৩ পয়েন্ট নিয়ে প্রথমে আছে ম্যানচেস্টার সিটি।আগামী রোববার নিজেদের পরের ম্যাচে ক্রিস্টাল প্যালেসের বিপক্ষে খেলবে আর্সেনাল।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

5 × 1 =

shares