এবারও বসে গেলেন জোকোভিচ

দর্শকদের কাছে ক্ষমা চাচ্ছি। তারা পুরো ম্যাচ দেখতে এসেছিল, দুঃখিত আজ সেটা সম্ভব নয়।

নোভাক জোকোভিচ

ব্যথায় কাঁধ নাড়ছিলেন বারবার। ম্যাচে ছিল না ছন্দও। তৃতীয় সেটের মাঝপথে যা বোঝার বুঝে যান নোভাক জোকোভিচ, দর্শকরাও। ৪-৬, ৫-৭, ১-২ গেমে স্তানিসলাস ওয়ারিঙ্কার বিপক্ষে পিছিয়ে থাকা অবস্থায় নিজেকে প্রত্যাহার করে নেন জোকোভিচ। গাঁটের পয়সা খরচ করে ম্যাচ দেখতে আসা দর্শকরা তা মানবে কেন? ইউএস ওপেনের বর্তমান চ্যাম্পিয়ন কোর্ট ছাড়ার সময় তাই দুয়ো দিতে থাকে তারা।

  • ২০০৫ সালের ফ্রেঞ্চ ওপেনে গিলের্মো কোরিয়ার বিপক্ষে ম্যাচের মাঝপথে সরে দাঁড়ান জোকোভিচ।
  • ২০০৬ সালের ফ্রেঞ্চ ওপেন, ২০০৭ সালের উইম্বলডন।
  • ২০০৯ সালের অস্ট্রেলিয়ান ওপেন আর ২০১৭ সালের উইম্বলডনেও হার মানেন চোটের কাছে।

২০১৬ ইউএস ওপেন ফাইনালে জোকোভিচকে হারিয়েছিলেন ওয়ারিঙ্কা। সেই হারের প্রতিশোধ নিতে মুখিয়ে ছিলেন ‘জোকার’। কিন্তু হলো উল্টোটা। পুরো টুর্নামেন্ট কাঁধের ব্যথায় ভোগা এই সার্বিয়ান শেষ ১৬-র ম্যাচটিতে ডাক্তার ডেকেছেন কয়েকবার। প্রথম দুই সেট হারের পর তৃতীয় সেটে সাইডলাইনে বসে ছিলেন কিছুক্ষণ।

এটা হতাশার, খুব বেশি মন খারাপের। তবে চোটের জন্য মাঝপথে সরে দাঁড়ানো প্রথম বা শেষ খেলোয়াড় নই আমি। চোট নিয়ে আর কথা বলতে চাই না। জীবন থেমে থাকবে না। এগিয়ে যেতে হবে।

নোভাক জোকোভিচ

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

7 − 4 =

shares