জনপ্রিয়তা বাড়াতে টেস্ট কাঠামোতে ব্যাপক পরিবর্তন আনছে আইসিসি

অনিল কুম্বলের নেতৃত্বাধীন আইসিসির ক্রিকেট কমিটি ২৮ ও ২৯ মে মুম্বাইয়ে এক বৈঠকে বসবে। ক্রিকেট কমিটির সেই সভায় আলোচনা হবে আইসিসির প্রস্তাবিত বিশ্ব টেস্ট চ্যাম্পিয়নশিপ নিয়ে ও নিয়ম-কানুন সংযোজন-বিয়োজন নিয়ে।

টি-টুয়েন্টির বিস্তারের মাঝে হারিয়ে যাচ্ছে ক্রিকেটের আদি সংস্করণ টেস্ট। এবার টেস্ট ক্রিকেটকে বিলুপ্তির হাত থেকে রক্ষা করতে টেস্টের কাঠামোতে কিছু পরিবর্তন আনতে যাচ্ছে আইসিসি।২০১৯ ওয়ানডে বিশ্বকাপের পর শুরু হতে যাওয়া এই টেস্ট চ্যাম্পিয়নশিপে র‌্যাঙ্কিংয়ের শীর্ষ ৯ দেশ ২৭টি দ্বিপক্ষীয় সিরিজে অংশ নেবে। ক্রিকেট কমিটি মুম্বাইয়ের সভায় বসে এই টেস্ট চ্যাম্পিয়নশিপের প্লেইং কন্ডিশন ঠিক করবে। প্লেইং কন্ডিশনে বেশ কিছু সংস্কারও থাকতে পারে। এর অন্যতম হচ্ছে সেখানে (টেস্ট চ্যাম্পিয়নশিপে) টস থাকবে, কি থাকবে না। এ ছাড়া পয়েন্ট পদ্ধতি আর উইকেটের নির্দিষ্ট মান বেঁধে দেওয়ার বিষয়ে আলোচনা হবে এখানে। ক্রিকেট কমিটির এ সিদ্ধান্তগুলো পরে জুনে ডাবলিনে আইসিসির নির্বাহী সভায় অনুমোদিত হবে। ক্রিকেট কমিটি যে বিষয়গুলো নিয়ে চূড়ান্ত সিদ্ধান্তে আসবে, সেগুলো এক নজরে দেখে নেওয়া যাক:

দিবারাত্রি টেস্ট

আগামী ডিসেম্বরে অস্ট্রেলিয়া সফরে দিবারাত্রির টেস্ট খেলতে অস্বীকৃতি জানিয়েছে ভারত। কারণ হিসেবে তারা বলেছে ‘প্রস্তুতিহীনতা’র কথা। অস্ট্রেলিয়ার বিপক্ষে গুরুত্বপূর্ণ এক সিরিজে ফ্লাডলাইটের আলোয় দিবারাত্রির টেস্ট খেলার যথাযথ প্রস্তুতি নেই, ভারতের অজুহাত এটিই। কিন্তু আইসিসি টেস্ট চ্যাম্পিয়নশিপে সফরকারী নয়,  স্বাগতিক দলের সিদ্ধান্তেই ঠিক হবে ম্যাচের সময়।  স্বাগতিক ক্রিকেট বোর্ড ইচ্ছা করলেই সিরিজে দিবারাত্রির টেস্ট আয়োজন করতে পারবে। একাধিক দিবারাত্রির টেস্ট আয়োজন করতেই কেবল প্রয়োজন হবে সফরকারী দলের সম্মতির। তবে সিরিজে দিবারাত্রির টেস্ট থাকলে সফরকারী দলকে অবশ্যই একটি দিবারাত্রির প্রস্তুতিমূলক ম্যাচ খেলার সুযোগ করে দিতে হবে।

টস

টস নিয়ে নতুন করে ভাবছে আইসিসি। ক্রিকেট কমিটিকে দায়িত্ব দেওয়া হয়েছে এ ব্যাপারে সিদ্ধান্ত নিতে। ইএসপিএন ক্রিকইনফো জানিয়েছে, স্বাগতিক দল হোম কন্ডিশনের যে সুবিধা নিয়ে থাকে, তা কমাতেই টস প্রথা তুলে দেওয়ার কথা ভাবছে আইসিসির কমিটি। ঘরের মাঠে যে দল খেলবে, তারা টস জিতলে প্রতিপক্ষ দলের তুলনায় অনেক বেশি সুবিধা পেয়ে থাকে। এই বৈষম্য কমাতেই টস প্রথা তুলে দেওয়ার কথা উঠেছে। এবং সফরকারী দলের ইচ্ছাতেই নির্ধারিত হবে ম্যাচের শুরুতে কে বোলিং বা ব্যাটিং করবে।

উইকেটের নির্দিষ্ট মানদণ্ড

গত কয়েক বছরে অনেক দেশেরই উইকেট নিয়ে প্রশ্ন উঠেছে। বিশেষ করে সফরকারী দলকে অসুবিধায় ফেলতে কিংবা হোম কন্ডিশনের সুবিধা নিতে রীতিমতো বাজে উইকেট বানানোর হিড়িক পড়েছে। সম্প্রতি বেশ কিছু টেস্টের উইকেটকে ‘বাজে’ রেটিং দিয়েছে আইসিসি। ক্রিকেট কমিটি ভাবছে, এমন একটা নিয়ম করতে যেখানে বাজে উইকেট বা আউট ফিল্ডের কারণে যদি কোনো ম্যাচ পরিত্যক্ত হয়, কিংবা উইকেটকে যদি ম্যাচ রেফারি ‘বাজে’ রেটিং দেন, তাহলে সে ম্যাচে সফরকারী দলকে বিজয়ী ঘোষণা করা হবে।

পয়েন্ট পদ্ধতি

টেস্ট চ্যাম্পিয়নশিপে দলগুলোর স্থান নির্ধারিত হবে পয়েন্টের ভিত্তিতে। সবচেয়ে বেশি পয়েন্ট পাওয়া দুই দল খেলবে ফাইনালে। আইসিসির ক্রিকেট কমিটির সভায় টেস্ট চ্যাম্পিয়নশিপ দলগুলোকে কীভাবে পয়েন্ট দেওয়া হবে, সেটা নিয়ে একটা সিদ্ধান্তে আসা হবে। প্রতিটি টেস্ট জিতলে কত পয়েন্ট, সিরিজ জিতলে কত, ড্র হলে কত, সিরিজ অমীমাংসিত হলে কত, এসবই ঠিক হবে মুম্বাইয়ের বৈঠকে।

ক্রিকেট কমিটি চাচ্ছে প্রতিটি টেস্টই পাঁচ দিনের করতে। সিরিজে দুটি টেস্টের মাঝখানে কমপক্ষে তিন দিনের বিরতি রাখা বাধ্যতামূলক করার ব্যাপারেও সিদ্ধান্ত হবে।

বল

আইসিসি টেস্ট চ্যাম্পিয়নশিপের দ্বিপক্ষীয় সিরিজগুলোতে স্বাগতিক দেশের পছন্দের ব্র্যান্ডের বল ব্যবহৃত হবে। ফাইনাল হবে যে দেশে, সে ম্যাচে সেই দেশের পছন্দের ব্র্যান্ড ব্যবহারের নির্দেশনা আসছে আইসিসির ক্রিকেট কমিটির সভায়।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

10 − 5 =

shares