নাজাম শেঠির পদত্যাগে টুর্নামেন্টের ভবিষ্যৎ নিয়ে শঙ্কিত ফ্র্যাঞ্চাইজিরা

অনেক জল্পনা কল্পনার পর ২০১৬ সালে আলোর মুখ দেখে পাকিস্তান সুপার লিগ(পিএসএল)। আর্ন্তজাতিক নিষেধাজ্ঞার কারণে পাকিস্তানের ‘দ্বিতীয় হোম গ্রাউন্ড’ হয়ে ওঠা সংযুক্ত আরব আমিরাতেই আয়োজন করা হয় পাকিস্তান ক্রিকেটের সবচেয়ে বড় আসর।

উদ্বোধনী আসরের প্রথম চ্যাম্পিয়ন ইসলামাবাদ ইউনাইটেড। পরের বছর পিএসএল ফেরে পাকিস্তানের মাটিতে। লাহোরের ঐতিহাসিক গাদ্দাফি স্টেডিয়ামে  শিরোপা জেতে পেশোয়ার জালমি। সে বছর অন্তত তিন ম্যাচ পাকিস্তানের মাটিতে অনুষ্ঠিত হয় এবং করাচির ন্যাশনাল স্টেডিয়ামে ফাইনালে জালমিকে হারিয়ে দ্বিতীয়বারের মত শিরোপা জিতে নেয় ইসলামাবাদ ইউনাইটেড।

কিন্তু পট পরিবর্তনের আভাস মিলছে পিসিবি’র সাবেক চেয়ারম্যান নাজাম শেঠির পদত্যাগের পর। নতুন করে বির্তক সৃষ্টি হওয়া বোর্ড চেয়ারম্যানের উপর আস্থা খুঁজে পাচ্ছে না ফ্র্যাঞ্চাইজিগুলো। পিএসএল এর আয়োজন বন্ধ হয়ে যাবার আশঙ্কাও রয়েছে তাদের মনে।

উদ্বেগের কারণ কী?

পিসিবি’র চেয়ারম্যান পদ থেকে শেঠির পদত্যাগের পর ৪ সেপ্টেম্বর আইসিসি’র সাবেক প্রেসিডেন্ট এহসান মানি তার স্থলাভিষিক্ত হন। পাকিস্তানের জাতীয় পত্রিকা দ্যা এক্সপ্রেস ট্রিবিউন জানিয়েছে, ইমরানে খানের রাজনৈতিক দল তেহরিক-ই-ইনসানের ক্ষমতালাভের মধ্যে দিয়ে পিসিবি’তে নাজাম শেঠি অধ্যায়ের সমাপ্তি ঘটে।

এর ফলে টুর্নামেন্টর ব্যবস্থাপনায় প্রভাব পড়বে বলে আশঙ্কা ফ্র্যাঞ্চাইজিদের। তারা নতুন বোর্ডের কাছে টুর্নামেন্ট আয়োজনের ঘোষণার অপেক্ষায় রয়েছেন। সম্প্রচার চুক্তিও চূড়ান্ত হয়নি। এদিকে টুর্নামেন্ট আয়োজনের লভ্যাংশ থেকে ৮৫ শতাংশ আয় ফ্র্যাঞ্চাইজির মধ্যে বন্টন করতে চায় পিসিবি।

টুর্নামেন্টের জন্য এখন পর্যন্ত কোন স্পন্সরশিপের প্রস্তাব আসেনি। ১৫ সেপ্টেম্বর নতুন চেয়ারম্যান মানি এ বিষয়ে এক জরুরী মিটিং ডেকেছেন। আশা করা হচ্ছে পাকিস্তান ক্রিকেটের সবচেয়ে বড় আয়োজনে ফ্র্যাঞ্চাইজিগুলোর পাশেই থাকবেন মানি।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

12 − 7 =

shares